বুয়েটে আন্দোলন স্থগিত, বুধবার পরবর্তী সিদ্ধান্ত

Arikulislam
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েন। ছবি : স্টার মেইল

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ রাব্বী হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দুইদিন ধরে চালিয়ে আসা সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলন স্থগিত করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাত পৌনে ১০টার দিকে এ আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দেয় শিক্ষার্থীরা। বুধবার সকাল ১০টায় পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে জানায় শিক্ষার্থীরা। তবে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হয়েছে।

এর আগে বুয়েটের উপাচার্যের কার্যালয়ে গেটের তালা খুলে দেন শিক্ষার্থীরা। যেখানে উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলামকে টানা ৪ ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখেন তারা।

এর আগে বেঁধে দেওয়া সময় শেষে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার পরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সামনে হাজির হন উপাচার্য। এসেই শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েন তিনি। এ সময় শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে উপাচার্য বলেন, ‘আমাকে ফাঁসি দিয়ে দাও।’

শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের কাছে জানতে চায়, রোববার রাতে আবরার ফাহাদ রাব্বীকে পিটিয়ে হত্যার পর এত সময় ধরে তিনি কোথায় ছিলেন? একপর্যায়ে উপাচার্য মাইকে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে কথা বলতে চান। কথার শুরুতেই তিনি বলেন, ‘আবরারের মৃত্যু হয়েছে।’ তখন শিক্ষার্থীরা ‘মৃত্যু নয় খুন হয়েছে’ বলে চিৎকার করতে থাকে। একপর্যায়ে তিনি বলেন, ‘ঠিক আছে, খুনই হয়েছে।’

উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশে বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে আমি অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নিয়েছি। প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়েছি। পাঁচ-ছয়জনকে নিয়ে বসেছি। সব তো আমার হাতে নেই। যেগুলো আমার হাতে আছে, সেগুলো আমি করছি। নীতিগতভাবে তোমাদের পূর্ণ সমর্থন দিচ্ছি। সারা দিন মন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলেছি। তোমরা অধৈর্য হবে না।’

এ সময় শিক্ষার্থীরা তাদের দাবির বিষয়ে সিন্ধান্ত না দিয়ে উপাচার্যকে ক্যাম্পাস না ছাড়ার দাবি জানান। এ সময় তিনি বলেন, ‘আমি তো কোনো অন্যায় করিনি।’

তখন শিক্ষার্থীরা উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলামকে উদ্দেশ করে ‘ভুয়া, ভুয়া’ বলে স্লোগান দেয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান করছে।

উপাচার্য সাইফুল ইসলাম শিক্ষার্থীদের বারবার বলতে থাকেন,   ‘এখানে কথা বলার জায়গা না। কথা বলতে দশজন প্রতিনিধি আমার সাথে বসো।’

এ সময় শিক্ষার্থীরা ‘ভুয়া, ভুয়া’ বলে চিৎকার করে ওঠে।

পরে আবারো উপাচার্য বলেন, ‘আমি অসুস্থ। সরকারপ্রধান জানেন, আমি কী করেছি। আমি চেষ্টা করছি এর সুষ্ঠু সমাধান করার।’

কিন্তু আট দফা দাবির বিষয়ে অটল থাকে ছাত্রছাত্রীরা। পরে উপাচার্য বলেন, আমি তোমাদের সাত দফার সঙ্গে একমত পোষণ করছি। তোমরা প্রতিনিধি দাও। প্রতিনিধির সঙ্গে কথা বলব। আমি এক কথায় বললাম, তোমাদের দাবির সঙ্গে একমত।’

এরপরও শিক্ষার্থীরা উপাচার্যকে ঘিরে অবরুদ্ধ করে রাখে।     

এর আগে শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ রাব্বীকে পিটিয়ে হত্যার ৩৬ ঘণ্টা পর আজ বিকেল ৫টার দিকে নিজ কার্যালয়ে আসেন উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। এরপর তিনি হল প্রভোস্টদের নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসেন। তখন শিক্ষার্থীরা তাঁর কক্ষে তালা মেরে কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ অবরোধ করতে থাকে।

আজ সকালে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বিকেল ৫টার মধ্যে উপাচার্যকে ক্যাম্পাসে আসার আলটিমেটাম দেয়। তিনি না এলে কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা করা হবে বলেও শিক্ষার্থীরা জানায়।

বিকেল ৫টা ১০ মিনিটের দিকে শিক্ষার্থীরা মিছিল নিয়ে এসে উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলামের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয়। এ সময় কর্মকর্তারা শিক্ষার্থীদের পাঁচজন প্রতিনিধির সঙ্গে কথা বলার প্রস্তাব দেন। কিন্তু শিক্ষার্থীরা তা মানতে নারাজ। উপাচার্যকে সবার সামনে জবাবদিহিতার আহ্বান জানায়।

শিক্ষার্থীরা জানায়, ফাহাদ হত্যার ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চায় তারা। উপাচার্য কথা বলতে না চাইলে তাঁর কার্যালয়ে তালা মারার ঘোষণা দেয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা শফিউর রহমান সাংবাদিকদের জানান, উপাচার্য ডিনদের সঙ্গে মিটিং করছেন। এরপর তিনি শিক্ষার্থী ও সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলবেন।

তবে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের এমন নীরবতায় তীব্র সমালোচনা করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নীলদলের শিক্ষক নেতারা বুয়েটের উপাচার্য ও শেরেবাংলা হলের প্রভোস্টের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

রোববার রাতে হত্যাকাণ্ড হলেও ঘটনাস্থল শেরেবাংলা হলে আসেননি উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম। ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বারবার উপচার্যের সঙ্গে সাক্ষাতের কথা বললেও তা আমলে নেননি হল প্রভোস্ট। এমনকি সোমবার রাতে ক্যাম্পাসে আবরারের জানাজায়ও ছিলেন না তিনি। এ নিয়ে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

শনিবার বিকেলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন আবরার ফাহাদ। এর জের ধরে রোববার রাতে শেরেবাংলা হলের নিজের ১০১১ নম্বর কক্ষ থেকে তাঁকে ডেকে নিয়ে ২০১১ নম্বর কক্ষে বেধড়ক পেটানো হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। পিটুনির সময় আবরারকে ‘শিবিরকর্মী’ হিসেবে চিহ্নিত করার চেষ্টা চালায় খুনিরা। তবে আবরার কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না বলে নিশ্চিত করেছেন তাঁর পরিবারের সদস্যসহ সংশ্লিষ্টরা।

এ ঘটনায় বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, সহসভাপতি মুহতাসিম ফুয়াদসহ ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর মধ্যে ১০ জনকে আজ পাঁচ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

হত্যার ঘটনায় ১৯ জনকে আসামি করে আবরার ফাহাদের বাবা সোমবার রাতে চকবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। বুয়েট কর্তৃপক্ষ একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছে। পাশাপাশি গঠন করেছে একটি তদন্ত কমিটিও।

এদিকে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ১১ জনকে ছাত্রলীগ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

Thinking About Necessary Factors For shark essay reviewingwriting

Might be the main internet websites with certified energetic essay writers. The only time you make cost is when you’ve the entire paper. When you approve the received results, then you may make the payment essayshark to the writer. So, there are many feedback regarding missed deadlines, dangerous content material […]

about

@Arikulislam Shakinb/Call:01987387798/@admin